Wednesday, February 28, 2024

ইউক্রেনের অগ্রযাত্রা থামাতে এখন কি করবেন পুতিন?

তারিখ:

রাশিয়ার দখল থেকে খারকিভ পুনরুদ্ধার করেছে ইউক্রেন। খেরসন উদ্ধারের প্রস্তুতি নিচ্ছে তারা। এ অবস্থায় চাপে আছেন রুশ প্রেসিডেন্ট।

সমরবিদরা মনে করছেন, বিপদজ্জনকভাবে যুদ্ধ সম্প্রসারিত করতে পারেন পুতিন। পরমাণু যুদ্ধে জড়াবেন না তিনি। কারণ তাতে রাশিয়াও ধ্বংস হয়ে যাবে।

পাল্টা হামলায় রাশিয়ার দখল থেকে আট হাজার বর্গকিলোমিটারের বেশি অঞ্চল পুনরুদ্ধার করেছে ইউক্রেন। প্রায় পুরো খারকিভ এখন তাদের নিয়ন্ত্রণে।

খেরসনেও পাল্টা হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে তারা। খারকিভ পতন স্বীকার করেছে রুশ গণমাধ্যমও। যদিও রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, লুহানস্ক-দোনেস্কে শক্তি বাড়াতে সৈন্য প্রত্যাহার।

খারকিভ পুনরুদ্ধার ইউক্রেনের বড় সফলতা। অন্যতম কারণ বলা হচ্ছে, পশ্চিমা অস্ত্র ও মার্কিন গোয়েন্দা সহায়তাকে। আরো সহায়তায় প্রস্তুত পশ্চিমারা।

তবে খারকিভ রুশ সীমান্তবর্তী অঞ্চল। যা রাশিয়ার দূরপাল্লার মিসাইলের আওতায়। মুক্তাঞ্চল কতোক্ষণ ইউক্রেনের দখলে থাকে তা নিয়েও শঙ্কা রয়েছে।

খারকিভ হাতছাড়া হলেও খেরসনের কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ বিশাল অঞ্চল রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে। পূর্বের ডনবাসের ৯০ শতাংশ তাদের দখলে।

তারপরও বর্তমান পরিস্থিতিতে কিছুটা চাপে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। পুতিন হার না মানা ব্যক্তি। এ মুহূর্তে কি করতে পারেন তিনি?

বিবিসি বাংলাকে সমরবিদ অধ্যাপক সৈয়দ মাহমুদ আলী বলেন, পরিস্থিতি খারাপের দিকে গেলে বিপদজ্জনক মাত্রায় যুদ্ধ সম্প্রসারিত করবে রাশিয়া।

দু’ভাবে রাশিয়া তা করতে পারে। জয়ের সম্ভাবনা না থাকলে অস্থিরতা তৈরির জন্য যুদ্ধ অন্য জায়গায় স্থানান্তর করতে পারে। যা মস্কোর পক্ষে সম্ভব।

দ্বিতীয়তটি হলো, পুতিনের হাতে থাকা ভয়াবহ মারণাস্ত্র, যেগুলো ইউক্রেনে ব্যবহার হয়নি, সেগুলোর ব্যবহার শুরু করতে পারেন।

তার মতে রাশিয়ার সমরশক্তির সীমিত অংশ ইউক্রেনে ব্যবহার করা হয়েছে। পরিস্থিতি সত্যিই নাগালের বাইরে চলে গেলে রাশিয়া তার অব্যবহৃত শক্তি প্রয়োগ করবে।

আর পরমাণু অস্ত্র ব্যবহারের শঙ্কার বিষয়ে তিনি বলেন, পরিস্থিতিকে ওই পর্যন্ত পৌঁছতে দেবেন না পুতিন। কারণ তিনি পরমাণু অস্ত্রের ভয়াবহতা সম্পর্কে অবগত। তাতে রাশিয়াও ধ্বংস হবে।

জনপ্রিয় সংবাদ