Sunday, February 25, 2024

ইউক্রেন সীমান্তে রাশিয়ার আরও সেনা মোতায়েন

তারিখ:

ইউক্রেনের কাছে আরও সেনা জমায়েত করেছে রাশিয়া। মার্কিন মহাকাশ প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান মাক্সার টেকনোলজিস এমন দাবি করেছে। সম্প্রতি উপগ্রহে অঞ্চলটি থেকে ধারণকৃত কিছু ছবি প্রকাশ করে এমন দাবি করা হয়েছে।

ইউক্রেন সীমান্তে রাশিয়ার সেনা মোতায়েনের ওপর নজর রাখছিল মার্কিন কোম্পানি মাক্সার টেকনোলজিস। প্রতিষ্ঠানটি বলেছে, ক্রিমিয়া, রাশিয়ার পশ্চিমাঞ্চল ও বেলারুশের বিভিন্ন জায়গায় নতুন করে রুশ সেনা মোতায়েন হতে দেখা গেছে। ছবিগুলো স্থানীয় সময় গত বুধবার ও গতকাল বৃহস্পতিবার উপগ্রহে ধারণ করা হয়।

তবে বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলেছে, আলাদা করে ছবিগুলোর সত্যতা যাচাই করতে পারেনি তারা।

এদিকে ইউক্রেনে অবস্থান করা মার্কিন নাগরিকদের তাৎক্ষণিকভাবে দেশটি ছেড়ে চলে আসতে বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। রুশ সামরিক আগ্রাসনের হুমকি থাকায় নাগরিকদের এমন নির্দেশনার কথা জানিয়েছে ওয়াশিংটন।

তিনি বলেন, ইউক্রেনে মস্কো হামলা চালালে নাগরিকদের উদ্ধারে কোনো বাহিনী পাঠাবে না আমেরিকা। সবকিছু দ্রুতই নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।

প্রতিবেশী দেশটির সীমান্তে এক লাখের বেশি সেনা মোতায়েন করে রেখেছে রাশিয়া। তবে কোনো হামলার পরিকল্পনা নেই বলে দাবি করেছেন পুতিন। এদিকে বেলারুশের সঙ্গে বড় ধরনের সামরিক মহড়া শুরু করেছে রাশিয়া। ইউক্রেনের অভিযোগ, রাশিয়া তাকে সাগরে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না।

ক্রেমলিনের দাবি, সাবেক সোভিয়েত মিত্র যাতে পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোতে যুক্ত না হয়, তা নিশ্চিতে একটি রেড লাইন নির্ধারণ করতে চায় মস্কো।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, উত্তেজনার মধ্যে কয়েক দশকে সবচেয়ে বড় নিরাপত্তা সংকটের মধ্যে রয়েছে ইউরোপ। মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও ইউক্রেন থেকে নাগরিকদের দ্রুত চলে আসতে বলেছে। এনবিসি নিউজকে বাইডেন বলেন, আমেরিকান নাগরিকদের এখনই ইউক্রেন ছাড়া উচিত।

তিনি বলেন, বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামরিক বাহিনীর একটির মোকাবিলা করছি আমরা। পরিস্থিতি সম্পূর্ণ ভিন্ন। যে কোনো সময় সবকিছু বদলে যেতে পারে।

আমেরিকানদের উদ্ধারে সেখানে সেনা পাঠানোর দরকার পড়তে পারে কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, নাহ, তা হবে না। রাশিয়া ও আমেরিকান সেনারা যখন পরস্পরের দিকে গুলি করতে শুরু করবে, তখন তা বিশ্বযুদ্ধে রূপ নেবে। আমরা সম্পূর্ণ ভিন্ন এক বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে আছি, যা আগে কখনো ছিল না।

ইউক্রেন নিয়ে চলমান সংকট নিরসনে ক্ষিপ্র কূটনৈতিক চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন বিশ্ব নেতারা। বৃহস্পতিবার রাশিয়া ও ইউক্রেনের কর্মকর্তারা বলেন, পূর্ব ইউক্রেনের বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সংঘাত বন্ধে জার্মান ও ফরাসি কর্মকর্তাদের ৯ ঘণ্টার আলোচনা থেকে কোনো সফলতা আসেনি।

কিয়েভের রাষ্ট্রদূত অ্যান্ড্রি ইয়ারমাক বলেন, আলোচনায় মতানৈক্য আছে। তবে কূটনৈতিক চেষ্টা অব্যাহত রাখা হবে।

আট বছর আগে ক্রিমিয়া উপদ্বীপ একীভূত করে নিয়েছিল রাশিয়া। এরপর থেকে পূর্বাঞ্চলে রুশ-সমর্থিত বিদ্রোহীদের সঙ্গে লড়াই চালিয়ে যেতে হচ্ছে ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীকে।

জনপ্রিয় সংবাদ